আমি নিশ্চিত, সুনেরাহ ইচ্ছা করে এসব ভিডিও ছড়িয়েছে: পরীমণি

চিত্রনায়ক শরীফুল রাজের ফেসবুকে মঙ্গলবার রাতে সুনেরাহ বিনতে কামালের ব্যক্তিগত মুহূর্তের কিছু ছবি ও ভিডিও ক্লিপস প্রকাশিত হয়। সুনেরাহর দাবি, ভিডিওগুলো পরীমণি নিজেই রাজের ফেসবুক অ্যাকাউন্টে পোস্ট করেছেন। কিন্তু এসব বিষয়কে মিথ্যা বলে অভিহীত করেছেন পরীমণি। তিনি বলেন, ওই মেয়েকে তো আমি চিনিই না! ওর সঙ্গে আমার কখনো কোনো কথাই হয়নি। মনে হয় সে আলোচনায় আসতেই আমার নাম নিয়ে এসব বলছে। এখন যদি এই কারণে রাজের সঙ্গে আমার বিচ্ছেদ হয়, তাহলে আমি ওই মেয়েকেই দায়ী করব। পরী জানান, এই ইস্যু নিয়ে এখনও শরিফুল রাজের সঙ্গে এখনও কোনো কথা হয়নি তার। বেশ কয়েকবার কথা বলার চেষ্টা করেছেন কিন্তু সম্ভব হয়নি। রীতিমত হুঁশিয়ারি দিয়ে তিনি বলেন, ঘুম থেকে উঠেই যদি এরকম একটা ঘটনা আমার সঙ্গে ঘটতে দেখতাম, তাহলে নাওয়া–খাওয়া বাদ দিয়ে আইনি ব্যবস্থা নিতে ছুটতাম। কিন্তু তাদের কারও মধ্যে সে ধরনের কিছুই তো দেখলাম না। আমি তো অবশ্যই খুঁজে বের করার চেষ্টা করতাম, কে বা কারা এসবের পেছনে জড়িত। আমি পরিষ্কার বলে দিচ্ছি, এই মেয়েটা আমার সঙ্গে যে নাটক করেছে, তার ফল ভোগ করবে সে। তিনি আরও বলেন, এটা পূর্বপরিকল্পিত। পুরো প্ল্যান করে আমাকে ফাঁসানোর চেষ্টা হচ্ছিল। আমার পারসোনাল লাইফে রাজ যে কয়েক দিন ধরে বাসায় নেই, এসব কি কেউ এত দিন জানত! আমি কিন্তু কাউকে বুঝতেও দিইনি। গোপন রাখার চেষ্টা করেছি। কিন্তু এই মেয়ে কী করল, এই সার্কেলটাই এমন—আমরা যে একসঙ্গে নেই, এটা কীভাবে পাবলিশ করে দিল! সম্পূর্ণ এই মেয়ের প্ল্যান। তা না হলে সারা দিন গেল, পরদিন দুপুর হলো—এটার পেছনে কারা আছে, কিছুই বের করল না। আমার তো এখন মনে হচ্ছে, সাইবার ক্রাইমে গিয়ে এসব আমারই বের করা উচিত। যে একদম গাধা, সে–ও বুঝবে, এটার পেছনে একটা চক্র কাজ করছে। এই চক্রই এসব করছে। আমি শতভাগ নিশ্চিত, সুনেরাহ ইচ্ছা করে এসব ভিডিও ছড়াইছে। সবারটা গণহারে দিয়েছে, যাতে আমারে ব্লেম করা যায়। এগুলো সব ওই মেয়েরই মাস্টারপ্ল্যান। আমি আমার জামাইয়ের সঙ্গে আলাপ করতে পারতেছি না। অথচ ওই মেয়ে বলতেছে, এটা যদি রাজ বলে…! আরে অদ্ভুত, তুই কি রাজকে শিখিয়ে দিবি, কী বলবে? তার মানে রাজ নিশ্চয় ওই মেয়ের কাছে কোনো কিছুতে ধরা আছে। ওই মেয়ে হয়তো রাজকে ব্ল্যাকমেল করবে—আমার তো এটাই আশঙ্কা হচ্ছে। আমি তো এখন নিশ্চিত, রাজ কারও দ্বারা ব্ল্যাকমেল হচ্ছে। ওই মেয়ে এত কনফিডেন্ট কেন।