ভুয়া মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়তেই জীবিত ফিরে যা বললেন পাকিস্তানি অভিনেত্রী

পাকিস্তানের জনপ্রিয় মডেল ও অভিনেত্রী সাইদা ইমতিয়াজের অফিশিয়াল ইনস্টাগ্রাম হ্যান্ডেলের এক পোস্টে মঙ্গলবার (১৮ এপ্রিল) তাকে মৃত ঘোষণা করা হয়। খবরটি মুহূর্তেই দেশটির প্রভাবশালী সব সংবাদমাধ্যমসহ অন্যান্য মাধ্যমে ছড়িয়ে পড়ে। যা নিয়ে শুরু হয় শোরগোল। সাইদা ইমতিয়াজের মৃত্যু নিয়ে দিনভর আলোচনার পর ওই দিন রাতেই আসে ভিন্ন তথ্য। এক ভিডিও বার্তায় অভিনেত্রী জানান, ‘তিনি বেঁচে আছেন এবং ভালো আছেন।’ তাহলে তার মৃত্যুর সংবাদ কীভাবে ছড়াল—এর জবাবও ভিডিও বার্তায় দিয়েছেন তিনি। খালিজ টাইমসের প্রতিবেদন অনুযায়ী পাকিস্তানি এ তারকা জানিয়েছেন, তার ইনস্টাগ্রাম অ্যাকাউন্ট কে বা কারা হ্যাক করেছিল। তারাই মৃত্যুর ঘোষণা দিয়েছিল। অভিনেত্রী বলেন, ঘুম থেকে উঠার পর কয়েকটি ফোন ও মেসেজ পাই। তবে কী হয়েছে সেটা বুঝতে পারছিলাম না। কিন্তু এটি আমার জন্য কষ্টদায়ক ছিল। সাইদার ভুয়া মৃত্যুর খবর ছড়িয়ে পড়তেই মানসিকভাবে ভেঙে পড়েছিলেন তিনি। অনেক কেঁদেছেনও। কেননা, তার মা ও বোন দেশের বাইরে থাকেন। পরিবারের গুরুত্বপূর্ণ সদস্যরা তার ভুয়া মৃত্যুর খবরে উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েছিলেন। এ ব্যাপারে তারকার ভাষ্য, মানুষকে অনেক সময় উত্ত্যক্ত করা হয়ে থাকে। কিন্তু একটি পরিবারের সদস্যদের এভাবে মানসিকভাবে আঘাত করা কখনোই মেনে নেয়ার মতো নয়। এদিকে অভিনেত্রীর সোশ্যাল মিডিয়া যারা হ্যাক করেছিলেন, তাদের সন্ধান পাওয়া গেছে। তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হচ্ছে। জিও টিভিকে এ ব্যাপারে সাইদার আইনি উপদেষ্টা ও ম্যানেজার মিয়ান শাহবাজ আহমেদ বলেছেন, সাইদা ইমতিয়াজ লাহোড়ে তার বাড়িতে জীবিত এবং ভালো আছেন। তিনি আরও বলেন, যারা তার সোশ্যাল অ্যাকাউন্ট হ্যাক করে গুজব ছড়িয়েছিল তাদের বিরুদ্ধে আইনি ব্যবস্থা নেয়া হবে। আমরা এর পেছনে অন্য কোনো কারণ রয়েছে কিনা তা খুঁজে বের করব। প্রসঙ্গত, সাইদার জন্ম সংযুক্ত আরব আমিরাতে হলেও বেড়ে উঠা নিউইয়র্কে। তিনি পাকিস্তানের সাবেক প্রধানমন্ত্রী ও ক্রিকেটার ইমরান খানের বায়োপিক ‘কাপ্তান’-এ ক্রিকেটারের সাবেক স্ত্রী জেমিমার চরিত্রে অভিনয় করেছেন। এছাড়া ‘ওয়াজুদ’, ‘রেডরাম’সহ কয়েকটি পাকিস্তানি সিনেমায় দেখা গেছে তাকে।