যে পথে হাঁটছেন আনিকা

আনিকা। পুরো নাম আনিকা তাবাসসুম। বাস রাজধানীতেই। প্রতিশ্রুতিশীল ফ্যাশন মডেল এবং অভিনেত্রী। বর্তমান সময়ে নাটক, সিনেমা ও ওটিটিতে সাবলীল অভিনয় দিয়ে নিজের জায়গা শক্ত করছেন তিনি। অভিনয়শিল্পীর পাশাপাশি তিনি একজন সমাজকর্মীও।

তার সঙ্গে কথা হয় দেশ রূপান্তরের। তিনি বলেন, ‘ছোটবেলা থেকেই অভিনয় করার স্বপ্ন দেখতাম। স্কুল-কলেজের অনুষ্ঠানলোতে নাচ-নাটক করতাম। সে সময় থেকেই মানুষকে নতুন কাজ উপহার দেওয়ার প্রবল আকাঙ্ক্ষা ছিল। অভিনয়ের শুরুটা কঠিন ছিল। অনেক জায়গায় অডিশন দিয়ে পরিচালকের কাছে নিজেকে প্রমাণ করার চেষ্টা করেছি। এ কাজে সবচে বেশি সহযোগিতা করেছেন আমার মা-বাবা।

আনিকা বলেন, ‘পরিচালক রায়হান বাকির পরিচালনায় একটি শর্টফিল্মে মাধ্যমে আমার মিডিয়ায় পথ চলা শুরু। এরপর ১২টি টেলিভিশন ধারাবাহিকে কাজ করি। এর মধ্যে ‘কাজলরেখা’ ‘রুবি হত্যা’ ‘টুইন ভিলেজ’ ‘ফ্যামিলি প্রবলেম’ ইত্যাদি। নাটক করেছি ৪০টির মতো।’

ইতিমধ্যে কিছু তিক্ত অভিজ্ঞতা হয়েছে তার। এ প্রসঙ্গে আনিকা বলেন, ‘আমি মনে করি মিডিয়া একটা কঠিন জায়গা। এখানে টিকে থাকতে ধৈর্য দরকার। তাহলে একদিন না একদিন স্বপ্ন পূরণ করা সম্ভব।’

‘বর্তমানে হাতে কি কি কাজ আছে’ জানতে চাইলে তিনি বলেন, ওয়েব ফিল্ম ‘দাগী’ ও ‘ডেড সোউল’-এ কাজ করেছি। এ ছাড়াও ‘এ শহর আমার’ নামে একটা সিনেমার সাইন করেছি। আশা করছি, এ বছর দর্শকদের ভালো কিছু উপহার দিতে পারব।

‘আমি সৃজনশীল কাজ ও শিক্ষামূলক বিষয় উপস্থাপনের মাধ্যমে মানুষের মনে জায়গা করে নিতে চাই। আমি একজন শিল্পের মানুষ হতে চাই। মানুষের জন্য কাজ করতে চাই। এর জন্য আমি বিদ্যাসভা নামক অলাভজনক প্রতিষ্ঠান চালাচ্ছি। বিদ্যাসভার মাধ্যমে প্রাথমিক ও হাতেকলমে শিক্ষা প্রদানের কাজ করি। আমি শিশুদের উন্নত বিশ্বেও গুণগত মানসম্মত শিক্ষার আওতায় নিয়ে আসতে চাই, যাতে ওরা নিজেদের সুশিক্ষিত করে গড়ে তুলতে পারে। আমি কোনো চরিত্রকে ছোট মনে করি না।’ যোগ করেন আনিকা।

শেষে বলেন, ‘আমি মনেপ্রাণে বিশ্বাস করি, স্বপ্ন আর লক্ষ্য ঠিক থাকলে একদিন স্বপ্ন পূরণ হবেই। আমি এখন সে পথেই হাঁটছি…।’