সাহায্য চেয়ে ফারিণের ফেসবুক লাইভ: নেটিজেনরা বলেছেন, সস্তা মানসিকতা

রাস্তায় দাঁড়িয়ে অভিনেত্রী তাসনিয়া ফারিণ। তার পরনে সালোয়ার-কামিজ; চোখে-মুখে উদ্বিগ্নতা। আবেগ জড়ানো কণ্ঠে এ অভিনেত্রী বলেন, ‘আমি বড় একটা বিপদে পড়ে গেছি। আমি বুঝতেছি না কীভাবে কি করা উচিত। আমি অনেক খুঁজছি, আমার বোনকে কোনোভাবেই খুঁজে পাইতেছি না। আপনারা আমাকে সাহায্য করেন।’ এসব কথা বলতে বলতে কেঁদে ফেলেন এই অভিনেত্রী।

তাসনিয়া ফারিণ তার ভেরিফায়েড ফেসবুক পেজে লাইভে এসে এভাবেই সাহায্য চান। প্রিয় অভিনেত্রীকে এভাবে সাহায্য চাইতে দেখে অনেক ভক্ত উদ্বিগ্ন হয়ে পড়েন। অনেকে মন্তব্য করে বিস্তারিত জানতে চান। কেউ কেউ ফারিণের জন্য দোয়া প্রার্থনা করেন। লাইভটির শেষাংশে ফারিণ বলেন— ‘আমি আমার বোনকে খুঁজে পাওয়ার চেষ্টা করছি। শেষ পর্যন্ত বোনকে খুঁজে পাই কিনা তা জানার জন্য আমার পেজে যুক্ত থাকুন।’

এরপর তাসনিয়া ফারিণ একই পোশাকে তোলা কিছু স্থিরচিত্র নিজের ফেসবুক পেজে পোস্ট করেন। আর ক্যাপশনে লিখেন— ‘‘আমার বোনকে কি সত্যিই খুঁজে পাব? এই ঈদে আসছে ‘নিকষ’।’’ আসলে সাহায্য চেয়ে ফারিণের লাইভটি ছিল ‘নিকষ’ নাটকের একটি প্রচারর কৌশল। নাটকের গল্পে ফারিণকে এমন রূপে দেখা যাবে। কিন্তু নাটকের প্রচারের জন্য ফারিণের এই মিথ্যা লাইভ ভালোভাবে গ্রহণ করেননি নেটিজেনরা। এই কৌশলকে ‘সস্তা মানসিকতা’ বলে মন্তব্য করেছেন তারা।

শাকিব রহমান শুভ নামে একজন লিখেছেন, ‘এমন প্রতারণা মেনে নেওয়া যায় না!’ আরেকজন লিখেছেন, ‘এটা খুবই সস্তা মানসিকতা, সাহায্য চাওয়ার নামে মজা করা।’ প্রশ্ন ছুড়ে দিয়ে মুন্না লিখেছেন, ‘মানুষের আবেগ নিয়ে এভাবে খেলা কি ঠিক?’ মোস্তফা আহমেদ লিখেছেন, ‘ফাইজালামির একটা সীমা থাকা দরকার।’ অনেকে বাঘ-রাখালের গল্প স্মরণ করে লিখেছেন, ‘আমি আপনাকে আর কখনো বিশ্বাস করব না।’ এমন অসংখ্য মন্তব্য ভেসে বেড়াচ্ছে কমেন্ট বক্সে।

তবে তাসনিয়া ফারিণ বলছেন— ‘ব্যতিক্রম কিছুর মাধ্যমে প্রচার শুরু করতে চেয়েছিলাম, যা দর্শকের মনে থাকবে। আর সেই ভাবনা থেকে লাইভটি করা। রহস্য পরিষ্কার করে দিয়েছি। সুতরাং দর্শকদের বিভ্রান্ত হওয়ার সুযোগ নেই।’ কিন্তু ফারিণের এই ব্যাখ্যা মানতে নারাজ নেটিজেনরা। তাদের ভাষ্য— ‘মানুষের আবেগ নিয়ে এভাবে খেলতে নেই।’