এবার আন্তর্জাতিক সম্মাননা পেলেন লায়ন এ জেড এম মাইনুল ইসলাম

২০১৯ সালের ডিসেম্বরে চীনের উহান রাজ্যে প্রথম ধরা পড়ে করোনাভাইরাস। এরপর এই মরণঘাতী ভাইরাস ছড়িয়ে পড়ে সারা বিশ্বে। ২০২০ সালের মার্চের শুরুতে বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়ে। এরপর সারাদেশে সৃষ্টি হয় এক ভয়াবহ পরিস্থিতি।

করোনাভাইরাস নিয়ে সাধারণ মানুষ থেকে শুরু করে স্বাস্থ্যসেবার সঙ্গে জড়িতদের মাঝেও তৈরি হয় অজানা আতঙ্ক। অদেখা-অজানা ভাইরাসের আতঙ্কে মানুষ হয়ে পড়েন ঘরবন্দী। মানবতার ফেরিওয়ালা খ্যাত লায়ন এ জেড এম মাইনুল ইসলাম পলাশ তখন জীবনের ঝুঁকি নিয়ে বিনামূল্যে বিতরন করেন সাবান, হ্যান্ড স্যানিটাইজার, মাস্ক ও কোভিট-১৯ করোনা ভাইরাস প্রতিরোধক আর্সেনিকাম অ্যালবাম ৩০ (Arsenicum Album 30)।

একজন তরুণ সমাজসেবক ছাড়াও তিনি একজন লেখক, সাংবাদিক ও মানবাধিকারকর্মী। বর্তমানে তিনি ‘ক্রাইম প্রতিদিন’ পত্রিকার প্রকাশক ও সম্পাদক, ‘অপরাধ মুক্ত বাংলাদেশ চাই (অমুবাচা)’ সংগঠনের প্রতিষ্ঠাতা ও চেয়ারম্যান, ‘সার্ক জার্নালিস্ট ফোরাম’ বাংলাদেশ চ্যাপ্টারের নির্বাহী সদস্য, ‘ফেডারেশন অব বাংলাদেশ জার্নালিস্ট অর্গানাইজেশন (এফবিজেও)’ এর সাংগঠনিক সচিব, ‘লায়ন ক্লাব ইন্টারন্যাশনাল’ এর সদস্য, ‘কাফরুল প্রেসক্লাব’ এর প্রতিষ্ঠাতা ও সভাপতি, ‘‘মিরপুর প্রেসক্লাব’’ এর সহ-সভাপতি সহ বিভিন্ন সংগঠনের দায়িত্ব পালন করছেন।

মহামারির দুঃসময়ে যখন মানুষ ঘরবন্দী, প্রিয়জনকেও এড়িয়ে চলেছেন, সেই সময়ে অনন্য মানবিকতার দৃষ্টান্ত স্থাপন করেছেন এই মানবতার ফেরিওয়ালা খ্যাত লায়ন এ জেড এম মাইনুল ইসলাম পলাশ। করোনাকালে কঠিন এই দায়িত্ব পালন করায় সব মানুষের প্রশংসা যেমন পেয়েছেন, তেমনি পেয়েছেন বিভিন্ন সংগঠনের বিশেষ সম্মাননা। তারই ধারাবাহিকতায় এবার পেলেন ইন্দো-বাংলা-নেপাল আন্তর্জাতিক মিডিয়া কনক্লেভ-২০২৩ আন্তর্জাতিক সম্মাননা।

সম্মাননা পদক পাওয়ার পর এক প্রতিক্রিয়ায় লায়ন এ জেড এম মাইনুল ইসলাম পলাশ বলেন, ‘কোটি টাকার অবৈধ সম্পদ গড়ার জন্য নয়, কোটি মানুষের ভালোবাসায় অপরাধ মুক্ত বাংলাদেশ গড়ার জন্য জম্ম নিয়েছি’; ‘মানুষ মানুষের জন্য, এটাই হোক মানুষের ধর্ম’।

তিনি আরো বলেন, মহামারির মতো এ রকম একটা পরিস্থিতি সৃষ্টি হবে সারা বিশ্বে তা ছিল কল্পনারও বাইরে। মানবিক দুর্যোগে মানুষের সেবা করাই ছিল আমার লক্ষ্য। ছোটকাল থেকেই স্বপ্ন ছিল মানুষের কল্যানে কাজ করা, করে যাচ্ছি, ইনশাআল্লাহ মৃত্যুর আগ মূহুর্তেও করে যাবো। সবাই আমার জন্য দোয়া করবেন।

উল্লেখ্য, গত বুধবার (১৭ মে ২০২৩ইং) ভারতের উত্তর প্রদেশের ঐতিহ্যবাহী তাজমহল খ্যাত আগ্রা শহরে ফাইভ স্টার হোটেল ক্লাকস সিরাজের আন্তর্জাতিক হলরুমে ইন্দো-বাংলা-নেপাল আন্তর্জাতিক মিডিয়া কনক্লেভ-২০২৩ অনুষ্ঠানে এই সম্মাননা প্রদান করা হয়। এই আন্তর্জাতিক কনফারেন্সে বাংলাদেশ, ভারত ও নেপাল থেকে প্রায় তিন শতাধিক সাংবাদিক যোগদান করেন।

উক্ত আন্তর্জাতিক কনফারেন্সে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন, ভারতের কেন্দ্রীয় সরকারের আইন ও বিচার বিষয়ক প্রতিমন্ত্রী ড. সত্য পাল সিং বাঘেল। প্রধান আলোচক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন উত্তর প্রদেশের শিক্ষামন্ত্রী যোগেন্দ্র উপাধ্যায়। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন সার্ক জার্নালিস্ট ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির সভাপতি রাজু লামা, সাাধারন সম্পাদক আবদুর রহমান, ইউপি জার্নালি অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি শিব মনোহর পান্ডে এবং সার্ক জার্নালিস্ট ফোরাম কেন্দ্রীয় কমিটির নির্বাহী সদস্য প্রফেসর স্মিতা মিশ্র।