কেসিসি নির্বাচন: ৬ কাউন্সিলর প্রার্থী নিয়ে বেকায়দায় বিএনপি

দলের সিদ্ধান্ত অমান্য করে খুলনা সিটি করপোরেশন (কেসিসি) নির্বাচনে ওয়ার্ড কাউন্সিলর পদে বেশ কয়েকজন বিএনপি নেতা মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। দলের মধ্যে পদ-পদবী না থাকার কারণে তাদের বহিস্কার নিয়ে দোটানায় পড়েছে দলটির নেতারা।

খোঁজ নিয়ে জানা গেছে, বিএনপির সাবেক ও বর্তমান কাউন্সিলরদের মধ্যে ৪ জনসহ মোট ৬জন মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন। তারা হলেন, ১৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর আশফাকুর রহমান কাঁকন, ২২ নম্বর ওয়ার্ডের সাবেক কাউন্সিলর মাহাবুব কায়সার, ২৪ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর শমসের আলী মিন্টু ও সংরক্ষিত ওয়ার্ডের কাউন্সিলর মাজেদা বেগম। এর মধ্যে ১৯নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর আশফাকুর রহমান কাঁকন ওয়ার্ড বিএনপির আহ্বায়ক। ২২ নম্বর ওয়ার্ড কাউন্সিলর মাহাবুব কায়সার দল থেকে পদত্যাগ করেছেন।

এছাড়া ২৪ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির সাবেক সভাপতি শমসের আলী মিন্টু ও মাজেদা বেগম বর্তমানে বিএনপির কোনো কমিটিতে নেই। অপরদিকে নগরীর ১৪ নম্বর ওয়ার্ডে কাউন্সিলর পদে মনোনয়নপত্র জমা দিয়েছেন, স্থানীয় ওয়ার্ড বিএনপি নেতা হুমায়ুন কবির ও সাবেক ছাত্রদল নেতা মুশফিকুর সালেহীন পাইলট।

এদিকে কাউন্সিলর পদে মনোনয়নপত্র সংগ্রহ করলেও জমা দেননি ১৮ নম্বর ওয়ার্ড বিএনপির আহ্বায়ক ও বর্তমান ওয়ার্ড কাউন্সিলর হাফিজুর রহমান মনি। বিগত দুবার বিপুল ভোটে কাউন্সিলর নির্বাচিত হয়েছিলেন তিনি। এবারো জয়ের সম্ভাবনা ছিল তার। কিন্তু দলের সিদ্ধান্ত মেনে নির্বাচন থেকে সরে এসেছেন তিনি।

এ ব্যাপারে খুলনা মহানগর বিএনপির আহবায়ক অ্যাডভোকেট এস এম শফিকুল আলম মনা ঢাকাটাইমসকে বলেন, দলের প্রতিটি সভায় নেতাদের নির্বাচনে না যাওয়ার জন্য বার বার হুঁশিয়ারি দেওয়া হয়েছে। যারা কথা শুনেননি, তাদের বহিষ্কার করা ছাড়া উপায় নেই। প্রত্যাহার পর্যন্ত আমরা অপেক্ষা করবো। এরপর কেন্দ্রের সঙ্গে কথা বলে সিদ্ধান্ত নিব।

বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় কাউন্সিলর নির্বাচিত হতে যাচ্ছেন টোনা:

দাখিল করা মনোনয়নপত্র বৈধ হলে কেসিসির ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে বিনা বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হবেন বর্তমান কাউন্সিলর এস এম খুরশিদ আহম্মেদ টোনা। গত মঙ্গলবার মনোনয়নপত্র জমাদানের শেষ সময় বিকাল ৪টা পর্যন্ত কেসিসির ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে খুরশিদ আহম্মেদ টোনা ছাড়া আর কোনো মনোনয়নপত্র জমা পড়েনি। টোনা নগরীর শিল্পাঞ্চল খ্যাত খালিশপুর এলাকার আওয়ামী লীগের রাজনীতির সঙ্গে জড়িত। ২০১৩ ও ২০১৮ সালের সিটি নির্বাচনেও তিনি কাউন্সিলর পদে নির্বাচিত হয়েছিলেন।

কাউন্সিলর প্রার্থী খুরশিদ আহম্মেদ টোনা ঢাকা টাইমসকে বলেন, দীর্ঘদিন ওয়ার্ডটির মানুষের সুখ দুঃখে তাদের পাশে থেকে কাজ করেছি। হয়তো সেই ভালোবাসা থেকে আমার বিরুদ্ধে কেউ প্রার্থী হতে চায়নি। নির্বাচিত হলে ওয়ার্ডবাসীর ভালোবাসার মর্যাদা রাখার চেষ্টা করব।

কেসিসি নির্বাচনের রিটার্নিং কর্মকর্তা মো. আলাউদ্দিন ১৩ নম্বর ওয়ার্ডে একক প্রার্থীর মনোনয়ন জমার বিষয়টি নিশ্চিত করে ঢাকা টাইমসকে বলেন, মনোনয়নপত্র যাচাই-বাছাই হবে। সেখানে বৈধতা পেলে ওই ওয়ার্ডে একক প্রার্থী হিসেবে বিনা প্রতিদ্বন্দ্বিতায় নির্বাচিত হবেন।