রাজশাহীতে অতি তীব্র তাপপ্রবাহ, তাপমাত্রা ৪২.৬ ডিগ্রি

রাজশাহীতে শুরু হয়েছে অতি তীব্র তাপপ্রবাহ। সোমবার (১৭ এপ্রিল) দুপুর ৩টায় রাজশাহীতে ৪২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করেছে স্থানীয় আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগার। এর আগে ২০১৪ সালের ২১ মে একই তাপমাত্রা রেকর্ড হয়েছিল। ৮ বছর ১০ মাস ২৭ দিন পর আবার একই তাপমাত্রা রেকর্ড হলো। আবহাওয়া অফিসের তথ্য অনুযায়ী, তাপমাত্রা ৩৬ থেকে ৩৮ ডিগ্রি সেলসিয়াসের ভেতরে থাকলে তাকে মৃদু তাপপ্রবাহ ধরা হয়। আর ৩৮ থেকে ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াসের মধ্যের তাপমাত্রাকে ধরা হয় মাঝারি তাপপ্রবাহ হিসেবে। তাপমাত্রা ৪০ ডিগ্রি সেলসিয়াস থেকে ৪১ দশমিক ৯ পর্যন্ত তীব্র তাপপ্রবাহ। আর ৪২ ডিগ্রি সেলসিয়াস অতিক্রম করলে তা অতি তীব্র তাপপ্রবাহ। সে অনুযায়ী আজ (সোমবার) রাজশাহীর ওপর দিয়ে অতি তীব্র তাপপ্রবাহ বয়ে যাচ্ছে। রাজশাহী আবহাওয়া পর্যবেক্ষণাগারের উচ্চ পর্যবেক্ষক রাজীব খান জানান, সোমবার সকাল শুরু হয়েছিল ২৫ দশমিক ২ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রায়। এরপর দুপুর ১টায় তাপমাত্রা উঠে যায় ৪২ দশমিক ৫ ডিগ্রি সেলসিয়াসে। বেলা ৩টায় তা শূন্য দশমিক ১ ডিগ্রি সেলসিয়াস বেড়ে ৪২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াসে পৌঁছায়। তিনি আরও জানান, ২০১৪ সালের ২১ মে রাজশাহীতে ৪২ দশমিক ৬ ডিগ্রি সেলসিয়াস তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয়েছিল। এর চেয়ে বেশি তাপমাত্রা গত আট বছরে আর ওঠেনি। তবে ২০১৪ সালের আগে ২০০৫ সালের ২ জুন সর্বোচ্চ তাপমাত্রার পারদ উঠেছিল ৪২ দশমিক ৮ ডিগ্রি সেলসিয়াস। এদিকে তীব্র গরমে কাহিল হয়ে উঠছে জনজীবন। অল্প পরিশ্রমেই ক্লান্ত হয়ে উঠছে মানুষ। তৃষ্ণার্ত হয়ে উঠেছে প্রাণিকূল। প্রখর রোদের তাপে ঝরে পড়ছে বাগানের গাছের আম ও লিচু। মাঠে মাঠে বোরো ধানের পাতা পুড়ে যাচ্ছে। একটু বৃষ্টির জন্য আকুল হয়ে উঠেছেন সবাই। তবে এখনও রাজশাহী অঞ্চলে বৃষ্টির সুসংবাদ দিতে পারছে না আবহাওয়া দপ্তর। সোমবার সকাল ৯টা থেকে পরবর্তী ২৪ ঘণ্টার জন্য আবহাওয়া অধিদপ্তরের পূর্বাভাসে বলা হয়েছে, বরিশাল, চট্টগ্রাম ও সিলেট বিভাগের দু’এক জায়গায় বৃষ্টির সম্ভাবনা আছে। খুলনা, ঢাকা, রাজশাহী অঞ্চলের ওপর দিয়ে বয়ে যাওয়া তাপপ্রবাহ অব্যাহত থাকতে পারে।